৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, বৃহস্পতিবার, ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ট্রেনে ঈদযাত্রার প্রথম দিন পরিবারকে আগে পাঠিয়ে দিচ্ছে অনেকে


প্রকাশিত :১০.০৬.২০১৮, ১২:৫৭ অপরাহ্ণ

ট্রেনে ঈদযাত্রার প্রথম দিন

পরিবারকে আগে পাঠিয়ে দিচ্ছে অনেকে

সড়কে যানজটের ঝক্কি এড়াতে অনেকে যাত্রার জন্য ট্রেনকে বেছে নিয়েছেন। ফাইল ছবিট্রেনের জানালা দিয়ে বাবাকে হাত নেড়ে বিদায় জানাচ্ছে ছয় বছর বয়সী আফ্রিদি। ঈদ উদ্‌যাপনে মায়ের সঙ্গে দিনাজপুরে দাদাবাড়ি যাচ্ছে সে। বাবা সঙ্গে যাচ্ছেন না। ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার পরই বাবা রওনা দেবেন।

ফোকলা দাঁতে হেসে আফ্রিদি বলল, ‘ঈদে গ্রামে যাচ্ছি, খুব মজা করব।’ আফ্রিদির বাবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মো. হাফিজুর রহমান এসেছেন কমলাপুর রেলস্টেশনে পরিবারকে বিদায় জানাতে। তিনি বললেন, ‘ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার সময়ের টিকিট পাইনি। তাই আগেই টিকিট কেটে স্ত্রী ও ছেলেকে পাঠিয়ে দিলাম। আমি অফিস করে ১৪ জুন বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেব।’

ঈদযাত্রার প্রথম দিনে আজ রোববার কমলাপুর রেলস্টেশনে ভোরে গিয়ে দেখা যায়, ঘরমুখী মানুষ জড়ো হতে শুরু করেছে। ভিড় তুলনামূলক কম। সড়কে যানজটের ঝক্কি এড়াতে অনেকে যাত্রার জন্য ট্রেনকে বেছে নিয়েছেন। ট্রেনগুলো স্টেশন ছেড়ে যাচ্ছিল নির্ধারিত সময়েই। এ নিয়ে স্বস্তি প্রকাশ করতে দেখা যায় অনেককে।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, আজ ভোর থেকে সকাল সাড়ে নয়টা পর্যন্ত কমলাপুর থেকে দেশের বিভিন্ন পথে ২২টি ট্রেন ছেড়ে গেছে। ১৩ জুন থেকে ঈদ উপলক্ষে নয় জোড়া বিশেষ ট্রেন ছেড়ে যাবে স্টেশন থেকে।

দুটি বড় ব্যাগ আর দুই সন্তান, স্ত্রীসহ স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে দৌড়াচ্ছিলেন মো. আমিনুল ইসলাম। তাঁরা দিনাজপুরে গ্রামের বাড়ি ঈদ করতে যাচ্ছেন। সকালে ঢাকার মিরপুরের বাসা থেকে কমলাপুরে আসতে একটু দেরি করে ফেলেন তাঁরা। ট্রেন ধরার জন্য হন্তদন্ত হয়ে ছুটছিলেন। শেষ পর্যন্ত ট্রেনে উঠতে পেরে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেন।

ট্রেনে উঠে আমিনুল ইসলাম বললেন, ‘প্রতিবার ঈদে বাসেই যাওয়া হয়। গতবার দিনাজপুর যেতে সড়কপথে ১৯ ঘণ্টা লেগেছিল। যানজটের কথা ভেবে এবার ট্রেনে যাচ্ছি।’

দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস সময়সূচি অনুযায়ী সকাল ১০টায় প্ল্যাটফর্ম ছাড়া শুরু করে।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আজ সকাল থেকে নীলসাগর এক্সপ্রেস ১৫ মিনিট ও তিস্তা এক্সপ্রেস ২২ মিনিট ও সুন্দরবন ৩২ মিনিট দেরিতে স্টেশন ছাড়ে। বাকি ট্রেনগুলো সময়মতোই কমলাপুর স্টেশন ছেড়ে চলে যায়। দেশের বিভিন্ন পথে আজ সারা দিনে আন্তনগর, লোকাল ও মেইল ট্রেন মিলিয়ে ৬৩টি ট্রেন ছেড়ে যাবে কমলাপুর থেকে। আজ থেকে কমলাপুর স্টেশনে ঢাকায় ফিরতি পথের টিকিটও কিনতে পাওয়া যাচ্ছে।

তেজগাঁও কলেজের শিক্ষার্থী তিন বন্ধুর সঙ্গে কথা হয় স্টেশনের চার নম্বর প্ল্যাটফর্মে। তাঁরা জামালপুরে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন। তাঁদের একজন নয়ন আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘টিকিট পেতে অনেক কষ্ট হয়েছে এবার। তবে প্রতিবার ট্রেনেই যাওয়া হয়। ক্লাস-পরীক্ষা নেই, তাই আগেভাগে বাড়িতে যাই। গ্রামে গিয়ে প্রচুর খেলাধুলা করব।’

কমলাপুর স্টেশনের ব্যবস্থাপক সিতাংশু চক্রবর্তী প্রথম আলোকে বলেন, যথাসময়ে বিভিন্ন পথে ট্রেনগুলো ছেড়ে যাচ্ছে বলে স্টেশনে অপেক্ষমাণ যাত্রীর সংখ্যা কম। এ কারণে স্টেশনে মানুষের ভিড় কম। তা ছাড়া প্রথম দিন ভিড় একটু কমই থাকে। ১৪ জুন থেকে স্টেশনে ঘরমুখী মানুষের ভিড় বাড়বে। সবাই সহযোগিতা করলে এবারের ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

স্টেশনে নিরাপত্তা প্রসঙ্গে সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, স্টেশনে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ট্রেনে পুলিশ থাকবে। ট্রেনের ছাদে কাউকে ভ্রমণ না করার অনুরোধ জানান তিনি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon