২২শে মে, ২০১৮ ইং, মঙ্গলবার, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



দৃশ্যমান হলো পদ্মাসেতুর ৬০০ মিটার


প্রকাশিত :১৩.০৫.২০১৮, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ

দৃশ্যমান হলো পদ্মাসেতুর ৬০০ মিটার


পদ্মাসেতুর উপর চতুর্থ স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে সেতুর ৬০০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে।

রোববার (১৩ মে) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে জাজিরা প্রান্তে ৪০ ও ৪১ নাম্বার খুঁটির ওপর ১৫০ মিটার দীর্ঘ এই স্প্যানটি স্থাপন করা হয়।

এর আগে কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে প্রস্তুত করার পর গতকাল শনিবার সকালে ভাসমান ক্রেন ‘তিয়ান ই’ দিয়ে ধূসর রঙের স্প্যানটি জাজিরায় পাঠানোর কাজ শুরু হয়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় স্প্যানটি যথাসময়ে বসানোর কাজ সম্পন্ন হয়।

২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতু। চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি ৩৮ ও ৩৯ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয় দ্বিতীয় স্প্যান। গত ১১ মার্চ ৩৯ ও ৪০ নম্বর খুঁটির ওপর বসে তৃতীয় স্প্যান।

সেতু বিভাগের প্রকৌশলীরা জানান, মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইর্য়াড থেকে স্প্যানটি নিয়ে তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার তিয়ান ই ক্রেনটি যাত্রা শুরু করে। স্প্যানটি খুঁটিতে তোলার পুরো কাজটি করেছে ভাসমান ওই ক্রেন আর প্রযুক্তির সাহায্যে।

স্প্যানটি জাজিরা প্রান্তে পিলারের কাছে পৌঁছাতে দুই দিন সময় লেগেছে । কিন্তু নদীতে পদ্মা সেতুর কাজে ভারি যন্ত্রাংশ ব্যবহার হচ্ছে, বড়বড় ক্রেন কাজ করছে, এ কারণে ভাসমান ক্রেনটি ধীর গতিতে চলতে হয়েছে, এতে স্প্যানটি জাজিরা প্রান্তে পৌঁছতে ২-৩ দিন সময় লেগে গেছে।

ইতোমধ্যে এপ্রোজ সড়ক দিয়ে যান চলাচল শুরু হয়েছে । টোল প্লাজার নির্মাণ কাজ শেষ করেছে সেতু বিভাগ। পদ্মা সেতুর দু’পারে দিন রাত চলছে কাজ ও বিশাল কর্মযজ্ঞ। চতুর্থ স্প্যান বসানোর খবরে দারুন খুশি দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ।

প্রথম স্প্যান বসানোর পর দীর্ঘ প্রায় চার মাস পর, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্প্যান বসানোর ২ মাস পর বসানো হল চতুর্থ স্প্যানটি। ৪২টি খুটির উপর এমন ৪২টি স্প্যানের সাহায্যে পদ্মার বুকে মাথা উঁচু করে দাড়াবে স্বপ্নের পদ্মা সেতু।

পদ্মা সেতুর কাজের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৫২ দশমিক ৫ শতাংশ। এছাড়া মুল প্রকল্পের কাজের ৫৮ শতাংশ শেষ করেছে সেতু বিভাগ। সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বেড়ে যাবে কয়েকগুন। বাপদাদার ভিটেবাড়ি গেলেও পদ্মা সেতুর কাজের অগ্রগতি দেখে সন্তুষ্ট স্থানীয়রা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon