১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং, মঙ্গলবার, ৫ই পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ



যে পুলিশের অপেক্ষায় গ্রামবাসী


প্রকাশিত :০৪.১২.২০১৭, ৮:২১ অপরাহ্ণ

যে পুলিশের অপেক্ষায় গ্রামবাসী

তারেক আজিজ/ব্রাহ্মণবাড়িয়া

মিজানুর রহমান পিপিএম বার! শুধু পুলিশের একজন বড় অফিসার হিসেবে পরিচিতি পর্ব সীমাবদ্ধ নয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাছে যিনি একজন জনপ্রিয় মানুষ। যার কাছে সমাজের নিম্ন শ্রেণীর মানুষগুলো সুখ-দুঃখের কথার টাই পায়। মাথা গুঁজে কান্নার জায়গা পায় সমাজের নিপরীত মানুষগুলি। পথ শিশুরাও খুঁজে পায় বাবার মত স্নেহ। হাবিবার মত এতিমরাও রাজকীয়ভাবে বিয়ের সুযোগ পায়। মৌসুমির মত ছোটরাও এই পৃথিবীতে নিজের পুঙ্গ হয়ে যাওয়া পা দিয়ে হাটার সুযোগ পায়। সেই পুলিশ সুপার সদ্য পদন্নোতি হওয়া বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি হয়েছেন।

অবশেষে আসছে সেই মহান মানুষটি। এবার যাবে শহীদদের গ্রাম হিসেবে পরিচিত ‘বিটঘর’ গ্রাম। এই গ্রামের আর একটি নাম আছে। যে নামটির পিছনে আছে হাজারো চোখে অশ্রু জড়ানো কান্নার ইতিহাস। ‘গণহত্যার গ্রাম’ গ্রাম হিসেবে পরিচিত স্থানীয় মানুষগুলোর কাছে। সেই মহৎ পুলিশ অফিসার যাওয়ার ব্যপারে নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আর এক জনপ্রিয় পুলিশ অফিসার যার নামের সাথে বার বার উচ্চারন করা হয় যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান হিসেবে পরিচিত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব মোঃ ইকবাল হোসাইন।
সেই খবর শুনে গ্রামের চায়ের কাপে এখন তুমুল আলোচনা হচ্ছে। কবে আসবে সেই পুলিশ? যে পুলিশ ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে বদলে দিয়েছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শত যুবকের অভিভাবকের নাম হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে, শান্তির নাম হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে, নির্ভয়ে রাত্রে পথ চলার নাম হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে, এতিম হাবিবাকে রাজকীয় বিয়ে দিয়ে পুরো বিশ্বের দরবারে মানবিকতার উদাহরন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে, ক্রন্দনরত মৌসুমিকে হাসি ফুটিয়ে ভালবাসার উদাহরন হিসেবে পরিচিতি হয়েছে, বন্যা দুর্গতদের মুখে অন্ন তুলে ঠোঁঠের কোনে শত বেদনার পরও স্মিত হাসি ফুটানোর বড় উদাহরন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon