২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, মঙ্গলবার, ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ



‘গফুর নামে টিকিট কেটে বাসে উঠেন ফরহাদ মজহার’


প্রকাশিত :০৪.০৭.২০১৭, ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ

‘গফুর নামে টিকিট কেটে বাসে উঠেন ফরহাদ মজহার’

Screenshot_2017-07-04-11-21-04-1

কবি ও প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহার খুলনা থেকে ঢাকা যাচ্ছিলেন ‘মি. গফুর’ নামে বাসের টিকিট কেটে বলে জানিয়েছেন বাসটির সুপারভাইজার হাফিজুর রহমান।

টানা ১৮ ঘণ্টা ‘নিখোঁজ’ রহস্যের পর সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের মণিহার বাস স্ট্যান্ড এলাকায় হানিফ পরিবহনের ৫০৫ নং এসি কোচ থেকে র‌্যাব ফরহাদ মজহারকে উদ্ধার করে।

ঘটনাস্থলে যশোর পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ফরহাদ মজহার গাড়িতে স্বাভাবিক ছিলেন। তিনি খুলনার শিববাড়ি কাউন্টার থেকে টিকিট কেটে ঢাকায় যাচ্ছিলেন।

সোমবার রাত সোয়া ১টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে খুলনা রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি মো. দিদার আহমেদ বলেন, ‘অপহরণ নয়; স্বেচ্ছায় ভ্রমণে এসেছিলেন ফরহাদ মজহার। তার সাথে থাকা ব্যাগে শার্ট, গেঞ্জি, টাকা ও মোবাইল ফোনের চার্জার পাওয়া গেছে। তিনি তার পরিবারকে বলে অথবা না বলে বাড়ি থেকে বের হন এবং আবার বাড়ি ফিরে যাচ্ছিলেন।’

বাসটির সুপার ভাইজার হাফিজুর রহমান জানান, ফরহাদ মজহার তার বাসের আই-৩ সিটের যাত্রী ছিলেন। তিনি খুলনার শিববাড়ি কাউন্টার থেকে বাসে ওঠেন। বাসে উঠেই তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। নওয়াপাড়ার কাছাকাছি স্থান থেকে তিনি টিকিট চেক করেন। তার টিকিটে নাম লেখা ছিল মিস্টার গফুর। নওয়াপাড়ায় পৌঁছানোর পর পুলিশ তাকে গাড়ি থামাতে নির্দেশ দেয়। অভয়নগর থানা পুলিশ ফরহাদ মজহারকে বাস থেকে নামিয়ে নেয়। এরপর র‌্যাব সদস্যরাও ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়।

বাসের পাশের সিটের যাত্রী ঢাকার বায়িং হাউজে চাকরিরত খুলনার দৌলতপুর এলাকার বাপ্পী জানান, তিনি বাসে ওঠার সময় পাশের সিটের যাত্রী (ফরহাদ মজহার) ঘুমিয়ে ছিলেন। অল্প আলোর কারণে তিনি চিনতে পারেননি। তবে পুলিশ যখন তাকে বাস থেকে নামিয়ে নেয় তখন তিনি চিনতে পেরেছিলেন।

পাশের সিটের আরেক যাত্রী শরিফুল জানান, তিনি পেশাগত কাজে খুলনার আবু নাসের হাসপাতালে এসেছিলেন। কাজ শেষে ঢাকায় ফিরছিলেন। তিনি ও ফরহাদ মজহার একই কাউন্টার থেকে বাসে উঠেছেন। তিনি প্রথমেই তাকে চিনতে পেরেছেন। পরে পুলিশ ও র‌্যাব তাকে নিয়ে গেছে।

এর আগে সোমবার ভোরে রাজধানীর শ্যামলীর বাসা থেকে বের হওয়ার পর আর তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে সারাদেশে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। তাকে অপহরণ করা হয়েছে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় এবং এ নিয়ে থানায় জিডিও করা হয়।

র‌্যাব-৬ এর অধিনায়ক খোন্দকার রফিকুল ইসলাম সমকালকে বলেন, ফরহাদ মজহার হানিফ পরিবহনের একটি বাসে খুলনা থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। খুলনায় তার অবস্থান শনাক্ত হওয়ার পর বিভিন্ন সড়কে তল্লাশি চৌকি বসানো হয়। এরই এক পর্যায়ে রাত প্রায় সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের নোয়াপাড়ায় ঢাকাগামী গাড়িটি তল্লাশি করে তাকে পাওয়া যায়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon