২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, মঙ্গলবার, ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ



‘আপনার প্রত্যাবর্তন আজো শেষ হয়নি’ ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি


প্রকাশিত :১৭.০৫.২০১৭, ৩:২৬ অপরাহ্ণ

‘আপনার প্রত্যাবর্তন আজো শেষ হয়নি’
ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি

FB_IMG_1495013014986

ছত্রিশ বছর আগের ঐ রবিবারে আপনি এসেছিলেন বলেই আমরা উদয়ের পথে যাত্রা শুরু করতে পেরেছিলাম। আপনার আগমনে ‘হিমালয় থেকে সুন্দরবন হঠাত্ বাংলাদেশ, কেঁপে কেঁপে উঠে পদ্মার উচ্ছ্বাসে।’ অঝোর বৃষ্টি, থেকে থেকে মেঘের গর্জন আপনার বুক ভরা বেদনা ও অশ্রুজল মুছে দিয়েছিল, মুক্তিপাগল লাখো জনতা আকাশ-বাতাস কাঁপিয়ে শ্লোগান দিয়েছিল ‘শেখ হাসিনার আগমন, শুভেচ্ছা স্বাগতম’ ‘ঝড় বৃষ্টি, আঁধার রাতে, আমরা আছি তোমার সাথে।’
পঁচাত্তর-এর ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়, বিদেশে থাকার কারণে আপনারা দুই বোন বেঁচে যান। তারপরের ইতিহাস- আপনাদের দুই বোনের জন্য এক নদী কষ্টের ইতিহাস, জিয়াউর রহমান আপনাদের দেশে আসতে দেয়নি। ’৮১ সালের ১৪, ১৫, ১৬ ফেব্রুয়ারি, আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে আপনার অনুপস্থিতিতে সর্বসম্মতভাবে আপনি আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। অবসান হলো নির্বাসনের, ’৮১ সালের ১৭ মে আপনি প্রত্যাবর্তন করলেন প্রিয় স্বদেশে, ছয় বছর আগে যাদের রেখে গিয়েছিলেন তাদের কাউকে পেলেন না, বাবা-মা-ভাই, দশ বছরের ছোট্ট রাসেল কেউ নেই। সব হারিয়ে প্রকৃতি ও লাখো জনতার ভালোবাসায় সিক্ত আপনি বিমানবন্দরে অশ্রুজলে বললেন, ‘বাংলার মানুষের মুক্তি সংগ্রামে অংশ নেওয়ার জন্য আমি দেশে এসেছি’ ‘আমার আর হারানোর কিছু নেই’ ‘আপনাদের নিয়েই আমি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই।’
আপনি কথা রেখেছেন, দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন, আপনার প্রাজ্ঞ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। পাঁচ কোটি লোক নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্তে উন্নীত হয়েছে। আমরা নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। অচিরেই মধ্যম আয়ের দেশ হবো। দারিদ্র্য বিমোচনে আপনার সাফল্যকে বিশ্বব্যাংক মডেল হিসেবে সারা বিশ্বে উপস্থাপন করেছে। ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের মাধ্যমে এক কোটি ২০ লক্ষ মানুষকে স্বাবলম্বী করেছেন। আপনার যুগান্তকারী ঘোষণা, ‘একটি লোকও গৃহহীন থাকবে না’ মানবিক বাংলাদেশের প্রতিধ্বনি। আপনার চিন্তা প্রসূত গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা, ঘরে ঘরে বিদ্যুত্, কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার ক্লিনিক, ডিজিটাল বাংলাদেশ, বছরের প্রথম দিন বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, ‘মায়ের হাসি’ নামে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এক কোটি ২০ লক্ষ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি প্রদান ও ২০ লক্ষ মাকে মোবাইল ফোন প্রদান, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ফান্ড গঠন, কৃষকদের জন্য কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ড প্রদান, দশ টাকায় কৃষকের ব্যাংক হিসাব খোলার ব্যবস্থা, বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, দুস্থ ভাতা প্রদানে উপকারভোগী বাংলাদেশের মানুষ।
আপনার সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও রায় কার্যকর করছে, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় কার্যকর হয়েছে।
বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করে অগ্রগতি, সাফল্য আর উন্নয়নের পতাকা উড়িয়ে বাঙালি জাতিকে আপনি আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। অথচ বিএনপি আমাদের ভিক্ষুক বানিয়ে রাখতে চেয়েছিল, ওরা বলেছিল, ‘গরিব থাকা ভালো, ওতে বেশি বেশি বিদেশি সাহায্য পাওয়া যায়।’ আপনি বলেছেন, ‘আমি ভিক্ষুকের সর্দার হতে আসিনি।’ আপনি ভিক্ষুকের সর্দার হতে আসেননি বলেই সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে পদ্মা সেতু নির্মাণ করছেন আমাদের নিজস্ব অর্থে, মেট্রো রেল হচ্ছে, কর্ণফুলি নদীর তলদেশে টানেল হচ্ছে, ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে। প্রবৃদ্ধি সঞ্চারী ফাস্ট ট্র্যাকভুক্ত মেগা প্রকল্পগুলোর কাজ এগিয়ে চলছে দুর্বারগতিতে।
জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন বলেছিলেন, ‘The dream of Sonar Bangla that Sheikh Mujibur Rahman had for his country is steadily becoming a reality.’ আপনি ক্যারিশমাটিক লিডার বলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন করছেন। ’৭১-এর পরাজিত শক্তি, ’৭৫-এর খুনীরা আপনার চলার পথে পথে গ্রেনেড বোমা গুলি তাক করে রেখেছে। ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা করে, কোটালীপাড়ায় ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে আপনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। ওরা আপনাকে ১৯ বার হত্যা করতে চেয়েছিল। আপনি ভিশনারি লিডার, ভিশন- ২০২১, ভিশন-২০৪১ বাস্তবায়নে কাজ করছেন নিরলস। আপনি পারেন এবং আপনিই পারবেন।
কবি নির্মলেন্দু গুনের ভাষায়, ‘আপনার প্রত্যাবর্তন আজো শেষ হয়নি, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সিঁড়িতে আপনি পা রেখেছেন মাত্র।’

FB_IMG_1495012797855

n লেখক :আইনজীবী ও সংসদ সদস্য



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon