২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, মঙ্গলবার, ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
  • প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » HRD দ: কোরিয়ার বাৎসরিক EPS সম্মেলন ও কোরিয় শ্রম মন্ত্রী আমন্ত্রিত সভায় রাষ্ট্রদূত: জুলফিকার রহমান



HRD দ: কোরিয়ার বাৎসরিক EPS সম্মেলন ও কোরিয় শ্রম মন্ত্রী আমন্ত্রিত সভায় রাষ্ট্রদূত: জুলফিকার রহমান


প্রকাশিত :০২.০৫.২০১৭, ৪:৩৯ অপরাহ্ণ

received_1310011985757818
কাজী শাহ্ আলমঃ দক্ষিণ কোরিয়া :: জেজুতে অনুষ্ঠিত এইচ আরডি কোরিয়ার বাৎসরিক ইপিএস সম্মেলনে এবং সউলে মাননীয় কোরিয় কর্মসংস্থান ও শ্রম মন্ত্রী আমন্ত্রিত বাৎসরিক সভায় মান্যবর রাষ্ট্রদূতের অংশগ্রহণ: ইপিএস পদ্ধতির অধিকতর উন্নয়নসহ ইপিএস কর্মীদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য উপস্থাপন।

মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মোঃ জুলফিকার রহমান কোরিয়ায় যোগদান করেই ইপিএস পদ্ধতির উন্নয়ন, বাংলাদেশ কর্তৃক এর সুবিধাগ্রহণ এবং ইপিএস কর্মীদের প্রাপ্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন যা কোরিয় কর্তৃপক্ষ এবং অন্যান্য কর্মী প্রেরণকারী দেশের রাষ্ট্রদূতগণের দ্বারা প্রশংসিত ও স্বীকৃত হয়ে আসছে।

received_1310011952424488তিনি ইপিএস সংক্রান্ত বিভিন্ গুরুত্বপূর্ণ সভা, সেমিনার ও অনুষ্ঠানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যোগদান করে থাকেন এবং বাংলাদেশী কর্মীদের বৈধ সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিতে সোচ্চার থাকেন। ইপিএস সংক্রান্ত বিভিন্ন সম্মেলন/সভা/সেমিনারের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল-কোরিয়ার কর্মসংস্থান ও শ্রম মন্ত্রীর সাথে বাৎসরিক সভা ও এইচআরডি কোরিয়া আয়োজিত বাৎসরিক ইপিএস সম্মেলন।

২০১৭ সালের এইচআরডি কোরিয়া আয়োজিত বাৎসরিক ইপিএস সম্মেলন গত ২০-২১ এপ্রিল তারিখে জেজু সিটির লট্টে হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ সহ ১৬ টি কর্মী প্রেরণকারী দেশেরে মান্যবর রাষ্ট্রদূত, শ্রম এ্যাটাশে এবং এইচআরডি কোরিয়ার প্রেসিডেন্টসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ যোগদান করেন। ২৯ মার্চ ২০১৭ তারিখে সউলে কোরিয়ার কর্মসংস্থান ও শ্রম মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইপিএস-এর আওতাভূক্ত দেশসমূহের রাষ্ট্রদূতদের সাথে এদেশের কর্মসংস্থান ও শ্রম মন্ত্রীর বাৎসরিক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উভয় সম্মেলনে মান্যবর রাষ্ট্রদূত ইপিএস পদ্ধতির ভূয়সী প্রশংসা করে এর অধিকতর উন্নয়নে বাংলাদেশের সহযোগিতার বিষয়ে পূর্ণ আশ্বাস দেন। তিনি বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীদের বিভিন্ন সমস্যা ও কতিপয় দাবীদাওয়া তুলে ধরেন। কোরিয় মাননীয় কর্মসংস্থান ও শ্রম মন্ত্রী এবং এইচআরডি কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট বিষয়গুলো পর্যায়ক্রমে সমাধানের আশ্বাস দেন।

যে বিষয়গুলো তিনি এ সকল সভা-সেমিনারে তুলে ধরছেন তা হলো:

১। ইপিএস কর্মীদের বয়সসীমা বৃদ্ধি
২। কর্মীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতকরণ এবং এর পরিধি বাড়ানো
৩। মালিক-শ্রমিক সম্পর্ক উন্নয়ন
৪। বাংলাদেশে ফেরত কর্মীদের সেখানে অবস্থিত কোরিয়ান কোম্পানীতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিযোগ
৫। মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর কর্মীদের দেশে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে সহযোগিতা ও স্বেচ্চাপ্রত্যাবর্তন (voluntary return) এর মেয়াদ বাড়ানো

received_1310011949091155মান্যবর রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে দূতাবাস বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উন্নয়ন, কর্মীসংখ্যা বৃদ্ধি ও তাদের স্বার্থ সংরক্ষণে আন্তরিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কমিউনিটির দ্বারা পরিচালিত সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গও এসব ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন। সবার প্রতি দূতাবাস কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে এবং আশা করছে যে, বাংলাদেশের এই গুরুত্বপূর্ণ শ্রম বাজার রক্ষাসহ দেশের ভাবমূর্তি উন্নয়নে আমাদের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা আরও জোরদার হবে এবং অব্যাহত থাকবে।
received_1310011945757822

received_1310011942424489



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
Designed By Linckon